অভিকর্ষ ও মহাকর্ষ কাকে বলে?

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা অভিকর্ষ কাকে বলে এবং মহাকর্ষ কাকে বলে তা নিয়ে আলোচনা করছি ।

মহাকর্ষ ও অভিকর্ষ

অভিকর্ষ কাকে বলে?

পৃথিবী তার কেন্দ্রের দিকে সকল বস্তু যে বল দ্বারা আকর্ষণ করে সেই বলকে অভিকর্ষ বা মাধ্যাকর্ষণ বল বলে ।

মহাকর্ষ বল কাকে বলে?

মহাবিশ্বের যে কোনো দুটি বস্তু কণার মধ্যবর্তী আকর্ষণ বলকে মহাকর্ষ বল বলে ।

বিজ্ঞানী নিউটন সর্বপ্রথম মহাকর্ষ বলের গাণিতিক ব্যাখ্যা দেন ।

পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে বস্তুর ওজন ভিন্ন হয় কেন?

বস্তুর ওজন পৃথিবীর বিভিন্ন স্থানে বিভন্ন রকম হয় এর মূল কারন অভিকর্ষজ ত্বরণ । অভিকর্ষজ ত্বরণ কে g দ্বারা প্রকাশ করা হয়।পৃথিবীর সব জায়গায় gএর মান সমান থাকে না। পৃথিবীর ব্যসার্ধের ওপর g এর মান নির্ভর করে। তাই সব জায়গায় পৃথিবীর ব্যসার্ধও এক নয় কারণ পৃথিবী সম্পূর্ণ গোলাকার ন। তাই g এর মান ও সব জায়গায় সমান নয়। এজন্যই বস্তুর ওজন সব জায়গায় সমান নয়। বস্তুর ওজন হলো অভিকর্ষজ ত্বরণ ও বস্তুর ভরের গুনফল।

পৃথিবীর কেন্দ্রে g এর মান কত?

পৃথিবীর কেন্দ্রে g এর মান শূন্য হয় ।

মহাকর্ষ ও অভিকর্ষ এর মধ্যে পার্থক্য

মহাকর্ষঅভিকর্ষ
মহাবিশ্বের যে কোনো দুটি বস্তু কণার মধ্যবর্তী আকর্ষণ বলকে মহাকর্ষ বল বলে । পৃথিবী তার কেন্দ্রের দিকে সকল বস্তু যে বল দ্বারা আকর্ষণ করে সেই বলকে অভিকর্ষ বল বলে ।
মহাকর্ষ যে কোনো দুটি বস্তুর মধ্যে হতে পারেঅভিকর্ষ দুইটি বস্তুর একটিকে অবশ্যই পৃথিবীতে হতে হবে
মহাকর্ষ বল দুর্বল প্রকৃতির হয়অভিকর্ষ বল শক্তিশালী হয়
মহাকর্ষ বল বিশ্বজনীনঅভিকর্ষ বল বিশ্বজনীন নয়

ক্যালোরিমিতির মূলনীতি কি?

বিভিন্ন উষ্ণতায় থাকা একাধিক বস্তুকে পরস্পরের তাপীয় সংস্পর্শে রাখলে শক্তির সংরক্ষণ সূত্র অনুসারে অপেক্ষাকৃত উষ্ণ বস্তুগুলি তাপ বর্জন করে এবং অপেক্ষাকৃত শীতল বস্তুগুলি তাপ গ্রহণ করে । তাপের এই বিনিময়ের ফলে উভয় বস্তু ই একটি সাধারণ উষ্ণতায় চলে আসে এবং তাপীয় সাম্যবস্তায় উপনীত হয় । এটি ই ক্যালোরিমিতির মূলনীতি ।

আরও পড়ুন –

অণু ও পরমাণুর মধ্যে পার্থক্য লেখ

আইসোটোপ কাকে বলে , আইসোবার কাকে বলে

প্রতিবিম্ব কাকে বলে? প্রতিবিম্ব কয় প্রকার ও কি কি?

সমতল দর্পণ কাকে বলে? বৈশিষ্ট্য ও ব্যাবহার আলোচনা কর?

Leave a Comment