অভিযোজন কাকে বলে? | অভিযোজন এর উদ্দেশ্য লেখ?

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা অভিযোজন কাকে বলে এবং অভিযোজন এর উদ্দেশ্য কি কি তা নিয়ে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করছি । আশা করি পোস্ট টি তোমরা মন দিয়ে পড়বে কারণ এটি জীবনবিজ্ঞান এর একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন এবং পরীক্ষাতে প্রায়ই এসে থাকে ।

অভিযোজন কাকে বলে? | অভিযোজন এর উদ্দেশ্য লেখ?

অভিযোজন কাকে বলে

কোনো জীব যখন আংশিক কিংবা সামগ্রিক গঠনগত ও শারীরবৃত্তীয় পরিবর্তনের দ্বারা কোনো নির্দিষ্ট প্রাকৃতিক পরিবেশের সঙ্গে নিজেকে উপযোগী করে তুলে নিজের জীবনযাপন ও বংশবৃদ্ধি করতে সক্ষম হয় তাকে অভিযোজন বলে ।

উপযোজন কাকে বলে

কোনো প্রাণী যখন কোনো জায়গা বদল না করেই অর্থাৎ বস্তু ও চোখের মধ্যকার দূরত্ব অপরিবর্তিত রেখেই যে যেকোনো দূরত্বে অবস্থিত বস্তুকে স্পষ্টভাবে দেখার জন্য চোখে বিশেষ ধরনের পরিবর্তন ঘটায়, সেই প্রক্রিয়াকেই উপযোজন বলে ।

অভিযোজন এর উদ্দেশ্য

  • নিজ প্রজাতির অস্তিত্ব রক্ষার জন্য নির্দিষ্ট পরিবেশের সঙ্গে নিজেকে মানিয়ে নেওয়া ও উপযোগী করে তোলা ।
  • সহজেই পরিবেশের পরিবেশের প্রতিকূলতা অতিক্রম করা ও বিপদে বা দুর্যোগে আত্মরক্ষা করা ।
  • অভিযোজন এর ফলে উৎপন্ন অনুকূল পরিবর্তন বংশ পরম্পরায় বাহিত হয়ে অভিব্যাক্তি বা বিবর্তনের পথ সুগম করা ।
  • নিজ প্রজাতির অস্তিত্ব বজায় রেখে বাস্তুতন্ত্রের ভারসাম্য রক্ষা করা ।

দ্বি অভিযোজন কাকে বলে

দুটি ভিন্ন পরিবেশে বাস করার জন্য জীবের দেহে ওই দুটি পরিবেশের উপযোগী অভিযোজন দেখা দিলে তাকে দ্বি অভিযোজন বলে ।

অভিসারী অভিযোজন কাকে বলে

ভিন্ন ভিন্ন গোষ্ঠীভুক্ত জীব একই পরিবেশে বাস করলে ওই জীবেদের মধ্যে একই প্রকার এর অভিযোজন দেখা যায়, তাই একে অভিসারী অভিযোজন বলে ।

উদাহরণ – তিমি ও মাছ ভিন্ন গোষ্ঠীভুক্ত হলেও একই পরিবেশে বাস করার জন্য উভয় এর মধ্যে একই প্রকার এর অভিযোজন দেখা যায় ।

অপসারী অভিযোজন কাকে বলে

একই গোষ্ঠীভুক্ত জীব ভিন্ন ভিন্ন পরিবেশে বাস করলে ওই জীবদের মধ্যে অপসারী অভিযোজন দেখা যায় ।

মুখ্য অভিযোজন কাকে বলে

অভিব্যাক্তির মাধ্যমে জীব যে পরিবেশে বিকশিত হয়, ওই জীবের সেই পরিবেশেই অভিযোজন ঘটলে তাকে মুখ্য অভিযোজন বলে ।

আরও পড়ুন –

অভিব্যক্তি ও অভিযোজন এর মধ্যে সম্পর্ক

Leave a Comment