ইউরােপের ধর্মসংস্কার আন্দোলনে মার্টিন লুথারের অবদান

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা ইউরােপের ধর্মসংস্কার আন্দোলনে মার্টিন লুথারের অবদান সম্পর্কে আলোচনা করছি ।

ইউরােপের ধর্মসংস্কার আন্দোলনে মার্টিন লুথারের অবদান

ইউরােপের ধর্মসংস্কার আন্দোলনে মার্টিন লুথারের অবদান

জার্মানি তথা ইউরোপের ধর্মসংস্কার আন্দোলনের প্রাণপুরুষ ছিলেন মার্টিন লুথার । তিনিই প্রথম খ্রিস্টান চার্চ ও পােপতন্ত্রের বিরুদ্ধে এক আন্দোলনের সূচনা ঘটান।

ধর্মসংস্কার আন্দোলনের প্রসার – মার্টিন লুথার সর্বপ্রথম জার্মানিতে ধর্মসংস্কার আন্দোলনের সূচনা ঘটান। পরবর্তীকালে এই ধর্মসংস্কার আন্দোলনের রেশ ছড়িয়ে পড়ে মধ্য, পূর্ব এবং পশ্চিম ইউরােপের বিস্তীর্ণ অঞ্চল জুড়ে।

খ্রিস্টধর্মের পুনরুজ্জীবনে প্রচেষ্টা – মাটিন লুথার খ্রিস্টধর্মাদর্শের পুনরুজ্জীবন ঘটান। লুথার বলেন যে, ভগবান হলেন সর্বশক্তিমান এবং তার ইচ্ছাতেই পৃথিবীতে সবকিছু ঘটে চলেছে। লুথারের মতে, সমস্ত মানুষের ভাগ্যই পূর্বনির্ধারিত এবং যে-কোনাে মানুষ মঙ্গলময় ঈশ্বরের করুণা‌ বা Gratia লাভের অধিকারী।

ইনডালজেন্সের বিরােধিতা – ১৫১৭ খ্রিস্টাব্দে যাজক টেটজেল সেন্ট পিটার্স চার্চ সংস্কারের অজুহাতে জার্মানির স্যাক্সনিতে যান। সেখানে তিনি পাপমুক্তির ছাড়পত্র হিসেবে ইনডালজেন্স বা মার্জনাপত্র বিক্রি করতে শুরু করেন। মার্টিন লুখার এই মার্জনাপত্র বিক্রয়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান।

বাইবেলের অনুবাদে উৎসাহদান – লুথারবাদীরা মনে করতেন যে, জ্ঞান ও বিশ্বাস অর্জনের জন্য শাস্ত্র পড়া প্রয়ােজন| এই লক্ষ্যেই নিজ নিজ ভাষায় বাইবেলের অনুবাদ প্রয়োজন। লুথার এই বিশ্বাসে অনুপ্রাণিত হয়ে বাইবেলের অনুবাদে উৎসাহ জোগান।

রাষ্ট্রশক্তির সুদৃঢ়করণ – লুখার বলেন যে, সমাজে বিশৃঙ্খলা ও অন্যায়ের প্রতিকার করার দায়িত্ব শাসকের। তাই পােপ বা যাজক নয়, শাসক ও তার কর্মচারীরাই হলেন পৃথিবীতে ঈশ্বরের প্রতিনিধি। লুথারের এই মত ইউরােপে রাজতন্ত্র ও জাতীয় রাষ্ট্রগুলিকে শক্তিশালী করে।

লিখিত প্রতিবাদ – লুথার অজস্র গ্রন্থ ও পুস্তিকা রচনার মধ্যে দিয়ে চার্চতন্ত্রের দুর্নীতির বিরুদ্ধে সরব হন। তিনি তাঁর বন্ডেজ অব দ্য উইল’ প্রবন্ধে লেখেন, “মানুষ ঈশ্বরের ইচ্ছার দাস, শুধু কাজের দ্বারা সে তার নিজের অবস্থার উন্নতি ঘটাতে পারে না” ।

ইনডালজেন্সের বিরােধিতা – ১৫১৭ খ্রিস্টাব্দে যাজক টেটজেল সেন্ট পিটার্স চার্চ সংস্কারের অজুহাতে জার্মানির স্যাক্সনিতে যান। সেখানে তিনি পাপমুক্তির ছাড়পত্র হিসেবে ইনডালজেন্স বা মার্জনাপত্র বিক্রি করতে শুরু করেন। মার্টিন লুখার এই মার্জনাপত্র বিক্রয়ের বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ান।

আরও পড়ুন –

ঠান্ডা যুদ্ধের কারণ ও পটভূমি আলোচনা কর

বাবর কি মুঘল সাম্রাজ্যের প্রকৃত প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন

বক্সারের যুদ্ধের কারণ ও ফলাফল এবং গুরুত্ব

বক্সারের যুদ্ধের কারণ ও ফলাফল এবং গুরুত্ব

Leave a Comment