কার্স্ট অঞ্চলে সঞ্চয় কার্যের ফলে গঠিত ভূমিরূপ গুলি আলোচনা কর

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা কার্স্ট অঞ্চলে সঞ্চয় কার্যের ফলে গঠিত ভূমিরূপ গুলি আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করছি । এটি একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন এবং পরীক্ষাতে প্রায়ই এসে থাকে তাই প্রশ্নের উত্তরটি মন দিয়ে পড়ুন এবং বন্ধুদের সাথেও শেয়ার করুন ।

এর আগের পোস্টে আমরা ভারতকে মৌসুমি জলবায়ুর দেশ বলা হয় কেন এই প্রশ্নের উত্তরটি বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করেছিলাম ।

কার্স্ট অঞ্চলে সঞ্চয় কার্যের ফলে গঠিত ভূমিরূপ গুলি আলোচনা কর

চুনাপাথর গঠিত অঞ্চলের দ্রবণ কার্যের ফলে নানা প্রকার এর সঞ্চয়জাত ভূমিরূপ দেখা যায় । এই সঞ্চয়জাত ভূমিরূপ গুলিকে একত্রে কেভ ট্রেভারটাইন বলা হয় । বিজ্ঞানী ডেভিসের মতে তিন ধরণের সঞ্চয়জাত ভূমিরূপ গড়ে উঠেছে ।

১) ড্রিপস্টোন বা পাতনস্তর- গুহার ছাদ থেকে জল চুইয়ে পড়ার সময় তাঁর সঙ্গে দ্রবীভূত চুনাপাথর ফোঁটা ফোঁটা রূপে পড়ে যে ভূমিরূপের সৃষ্টি করে তাকে ড্রিপস্টোন বলে ।

গুহার মধ্যে সৃষ্ট ভূমিরূপগুলি হল- স্ট্যালাকমাইট, স্ট্যালাকটাইট, হেলিফমাইট, স্তম্ভ বা পিলার, অ্যান্থ্রোসাইট ।

স্ট্যালাকটাইট- ভূ-পৃষ্টের ওপর দিয়ে প্রবাহিত জল চুনাপাথরকে দ্রবীভূত করে গুহার দেওয়াল দিয়ে বা দারণ ফাটল দিয়ে জল চুইয়ে চুইয়ে নীচের দিকে নামতে থাকে তখন ঝুলন্ত ফোঁটার জল বাষ্পীভূত হয়ে ক্যালশিয়াম কার্বনেট রূপে সঞ্চিত হয়ে যে বটগাছের ঝুরির মতো ভূমিরূপ সৃষ্টি করে তাকে স্ট্যালাকটাইট বলে । স্ট্যালাকটাইট গুলি ওপরের দিকে মোটা এবং বিস্তৃত ও নীচের দিক দিয়ে ক্রমশ সরু হয়ে আসতে থাকে ।

স্ট্যালাকটাইট গুলি ওপরের দিকে মোটা এবং বিস্তৃত ও নীচের দিক দিয়ে ক্রমশ সরু হয়ে আসতে থাকে

উদাহরণ- আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ম্যামথ ও কার্লসবার্ড গুহায় এবং যুগোস্লাভিয়ার দিনারিক আল্পস পার্বত্য অঞ্চলে ও অস্ট্রেলিয়ার কুইন্সল্যান্ডের কাস্ট অঞ্চলেও স্ট্যালাকটাইট দেখা যায়।

স্ট্যালাকমাইট- কার্স্ট অঞ্চলে চুনাপাথরে দ্রবীভূত হয়ে চুনের ফোঁটা নীচের দিকে নেমে মেঝেতে পড়ে অপেক্ষাকৃত মোটা চুনের সঙ্গে গঠিত হয় ও ক্রমশ বাড়তে থাকে এরুপ ভূমিরূপ কে স্ট্যালাকমাইট বলে

উদাহরণ- ভারতের দেহরাদুনের কাছে তপকেশ্বর অবস্থিত নামক জায়গায় এছাড়া বিহারের সাসারামের গুপ্তেশ্বর গুহায় স্ট্যালাগমাইট দেখা যায় । আমেরিকা যুক্তরাষ্ট্রের ম্যামথ গুহায় ও ফ্রান্সের গুফ্রে বার্জার গুহায় স্ট্যালাগমাইট দেখা যায়।

হেলিকমাইট- কার্স্ট অঞ্চলে চুনাপাথরের গুহায় সৃষ্ট স্ট্যালাকটাইট গুলি তির্যক ভাবে অবস্থান করে । এই হেলানো ভাবে থাকা অর্থাৎ তির্যক স্ট্যালাকটাইট গুলিকে হেলিকটাইট বলে ।

হেলিকটাইট- কার্স্ট অঞ্চলে চুনাপাথরের গুহায় সৃষ্ট স্ট্যালাকটাইট গুলি তির্যক ভাবে অবস্থান করে । এই হেলানো ভাবে থাকা অর্থাৎ তির্যক স্ট্যালাকটাইট গুলিকে হেলিকমাইট বলে ।

পিলার- কার্স্ট অঞ্চলে চুনাপাথরের গুহায় সৃষ্ট চুনাপাথরের স্ট্যালাকটাইট এবং ঠিক তার নীচে থাকা স্ট্যালাকমাইট গুলি অনেক সময় পরস্পর যুক্ত হয়ে স্তম্ভ বা পিলার এর আকার ধারণ করে ।

ড্রেপ বা কার্টেন- কার্স্ট অঞ্চলে চুনাপাথরের গুহার ছাদ থেকে অসংখ্য স্ট্যালাকটাইটের মত ঝুলন্ত সরু সরু খাঁজকাটা পর্দার ন্যায় দেখতে হয় এইগুলিকে ড্রেপ বা কার্টেন বলে ।

অ্যানথোডাইট– কার্স্ট অঞ্চলে চুনাপাথরের গুহার ছাদ থেকে জমাট বেঁধে যাওয়া ঝুলন্ত ফুলের পাপড়ির ন্যায় দ্রবীভূত চুনের রূপকে অ্যানথোডাইট বলে।

আরও পড়ুন-

আগ্নেয় পর্বত কাকে বলে, উৎপত্তি, প্রকারভেদ এবং বৈশিষ্ট্য

ভৌমজল কাকে বলে? | ভৌমজলের গুরুত্ব আলোচনা কর?

হুগলি নদীর উভয় তীরে পাট শিল্পের উন্নতির কারণ

Leave a Comment