গার্ডনারের বহুমুখী বুদ্ধির তত্ত্ব আলোচনা কর

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা গার্ডনারের বহুমুখী বুদ্ধির তত্ত্ব এই প্রশ্নের উত্তরটি আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করছি । এডুকেশন বিষয়ের এটি একটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং পরীক্ষাতে এই প্রশ্নটি প্রায়ই এসে থাকে তাই প্রশ্নের উত্তরটি মন দিয়ে পড়ুন এবং বন্ধুদের সাথেও শেয়ার করুন ।

এর আগের পোস্টে আমরা বৃদ্ধি ও বিকাশের মধ্যে পার্থক্য নিয়ে আলোচনা করেছিলাম ।

গার্ডনারের বহুমুখী বুদ্ধির তত্ত্ব আলোচনা কর

গার্ডনারের বহুমুখী বুদ্ধির তত্ত্ব

1983 সালে হাওয়ার্ড গার্ডনারের এক নতুন বুদ্ধির তত্ত্ব উপস্থাপন করেন যা ‘বহুবিধ বুদ্ধির তত্ত্ব’ নামে পরিচিত ।

গার্ডনার মানুষের আটটি বুদ্ধির কথার আলোচনা করেন । সেগুলি হল-

১) ভাষাগত বুদ্ধি- এটি হল ভাষাগত ক্ষমতা যার দ্বারা ব্যাক্তি নিজের মনের ভাব প্রকাশ করতে পারে । সাধারণভাবে লেখক, শিক্ষক, বক্তা প্রভৃতি ব্যাক্তিদের মধ্যে এই ধরণের বুদ্ধি বেশী দেখা যায় ।

২) স্থানিক বুদ্ধি- এই ধরণের বুদ্ধির দ্বারা ব্যাক্তির স্থান সংক্রান্ত ধারণাকে মানসিক দিক দিয়ে প্রকাশ করতে পারে এবং ত্রিমাত্রিক ভাবে চিন্ত করতে পারে । বাস্তুকার, চিত্রশিল্পি, নাবিক প্রভৃতি কাজের সঙ্গে যুক্ত ব্যাক্তিদের এই ধরণের বুদ্ধি বেশী থাকে ।

৩) যৌক্তিক ও গাণিতিক বুদ্ধি- এই ধরণের ক্ষমতার মাধ্যমে ব্যাক্তি যৌক্তিক ও গাণিতিক সমস্যার সমাধান করতে সামর্থ্য হয় । বিজ্ঞানী, শিক্ষক, দার্শনিক, গণিতবিদ প্রভৃতি ব্যাক্তিদের মধ্যে এই বুদ্ধি দেখা যায় ।

৪) সঙ্গীত সঙ্ক্রান্ত বুদ্ধি- ব্যাক্তির স্বরগ্রাম পৃথকীকরণের ক্ষমতা, সুরবোধ প্রভৃতির ক্ষমতাকে সঙ্গীত সংক্রান্ত বুদ্ধি বলে । সাধারণত সুরকার, সঙ্গীতকার প্রভৃতি ব্যাক্তিদের এই বুদ্ধি বেশী থাকে ।

৫) শারীরবৃত্তীয় গতীয় বুদ্ধি- কোন কিছু তৈরি করতে বা সমস্যা সমাধান করতে ব্যাক্তির শরীরের পুরো অংশ বা কিছু অংশকে ব্যাবহার করার ক্ষমতাকে শারীরবৃত্তীয় গতীয় বুদ্ধি বলে । খেলোয়াড়, ডাক্তার প্রভৃতি ব্যাক্তিদের মধ্যে এই বুদ্ধি বেশী দেখা যায় ।

৬) ব্যাক্তিমধ্যস্ত বুদ্ধি- এই ধরণের বুদ্ধির সাহায্যে ব্যাক্তি নিজের ক্ষমতা বা দুর্বলতা সম্পর্কে সচেতন হয় । ব্যাক্তির নিজের আত্মসচেতনতা গঠনে এই বুদ্ধি বিশেষভাবে প্রয়োজন ।

৭) আন্তঃব্যাক্তি বুদ্ধি- এই বুদ্ধির সাহায্যে ব্যাক্তি অন্যকে বুঝতে পারে এবং অন্যদের সঙ্গে কার্যকরী ভাবে মিথস্ক্রিয়া করতে পারে । কাউন্সিলার, শিক্ষক- শিক্ষিকা, প্রমুখ ব্যাক্তিদের এই বুদ্ধি বেশী দেখা যায় ।

৮) প্রকৃতিগত বুদ্ধি- এই বুদ্ধির মাধ্যমে ব্যাক্তি প্রাকৃতিক বা সজীব উপাদানকে পৃথকীকরণ বা চিহ্নিতকরতে পারে । তা ছাড়াও এই বুদ্ধির দ্বারা ব্যাক্তি প্রকৃতির বিভিন্ন ঘটনাবলী অনুধাবন করতে পারে । কৃষক, উদ্ভিদ বিজ্ঞানী প্রভৃতি ব্যাক্তিদের মধ্যে এই বুদ্ধি বেশী দেখা যায় ।

গার্ডানারের তত্ত্বের শিক্ষাগত তাৎপর্য-

এই তত্ত্বের শিক্ষাগত তাৎপর্য নিম্নরূপ-

  • এই তত্ত্বের একটি স্বীকার্য হল প্রত্যেক শিক্ষার্থীর সবরকমের বুদ্ধি সমানভাবে থাকে না । কোনটি বেশী ও কোনটি কম থাকে । যেটিতে বেশী থাকে শিক্ষার্থীকে সেদিকে চালনা করলে তার পারদর্শিতা বাড়বে ।
  • গার্ডানার বলেন বেশীরভাগ কাজের ক্ষেত্রেই একাধিক বৃদ্ধি প্রয়োজন । সুতরাং সমস্ত বুদ্ধিরই পরিচর্যা হওয়া উচিত ।

আরও পড়ুন-

বয়ঃসন্ধিকালে মানসিক পরিবর্তন | বয়ঃসন্ধিকালে সামাজিক পরিবর্তন

কোঠারি কমিশনের মতে শিক্ষার লক্ষ্য

শ্রেণিকক্ষে মিথস্ক্রিয়ার শিক্ষকের ভূমিকা

Leave a Comment