গিয়াসুদ্দিন বলবনের নরপতিত্বের আদর্শ ব্যাখা কর

হ্যালো বন্ধুরা, গিয়াসুদ্দিন বলবনের ২২ বছরের রাজত্বকালে দিল্লীর সুলতানি সাম্রাজ্য ইতিহাসে এক গৌরবময় স্থান অধিকার করে আছে । নাসিরউদ্দিনের রাজত্বকালে তিনি ৪০ জনের গোষ্ঠী ভুক্ত আমীর গণের নেতা হিসেবে দরবারে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করতে সক্ষম হয়েছিলেন । 1265 খ্রীঃ নাসির উদ্দিনের নিঃসন্তান অবস্থায় মৃত্যুবরণ ঘটলে বলবন সিংহাসনে উত্তরাধিকারী মনোনীত হন । এই বিষয়ে কোন সন্দেহ নেই যে বলবনের সিংহাসনের আরোহণের সঙ্গে সঙ্গে দিল্লি সুলতানির সাম্রাজ্যের এক সুদূর কেন্দ্রীয় শাসনের যুগ শুরু হয় । নিম্নলিখিত আলোচনায় নরপতিত্বের আদর্শ ব্যাখ্যা করা যেতে পারে ।

গিয়াসুদ্দিন বলবনের নরপতিত্বের আদর্শ ব্যাখা কর

রাজকীয় ক্ষমতা- প্রথমেই বলবনের রাজকীয় ক্ষমতা ও মর্যাদা পুনরুদ্ধার করতে যত্নবান হন । দীর্ঘ রাজনৈতিক অভিজ্ঞনার ফলে তিনি উপলব্ধি করে ছিলেন যে গর্বিত তুর্কি আমীর ওমরাহদের স্পর্ধা ও ক্ষমতা বিনষ্ট না করলে সুলতানের ক্ষমতা ও মর্যাদা পুনরুদ্ধার করা সম্ভব নয় । নাসিরুদ্দিনের রাজতন্ত্রের শেষ দিকে রাষ্ট্র শক্তির প্রতি প্রতি জন সাধারণের কোন আস্থা ও শ্রদ্ধা ছিল না । সমগ্র দেশ অরাজকতায় পূর্ণ ছিল । বলবনের এরুপ আস্থার অবসান ঘটিয়ে সিংহাসনে তথা সুলতানের মর্যাদা পুনরুদ্ধার করতে ও জন সাধারণ বিশেষত অভিজাত সম্প্রদায়ের মনে রাষ্ট্র শক্তি সম্পর্কে ভিত্তির সঞ্চার করতে দৃঢ় সংকল্প হন ।

দৈবস্বত্ব- ইংল্যান্ডের স্টুয়ারট রাজাদের মতো বলবনও রাজার দৈব স্বত্বে বিশ্বাসী ছিলেন । তিনি আমীর ওমরাহদের একথা বোঝাতে চাইছেন যে, রাজার ক্ষমতার মূলউৎস হলেন ঈশ্বর, অভিজাত বা জনসাধারণ নয় । এই কারণে রাজার কাজের সমালোচনা করার অধিকার কারও হতে পারে না ।

দ্ঢ়ভিত্তিতে নরপতিত্ব – বলবন নরপতিত্বের আদর্শকে দ্ঢ়ভিত্তিতে প্রতিষ্ঠিত করার জন্য রাজার বাহ্যিক আড়ম্বর ও সম্মানের ওপর স্ব-বিশেষ গুরুত্ব আরোপ করেন । জনগণের কাছ থেকে নিজের ব্যাবধানের দূরত্ব বজায় রাখতে তিনি সর্বদাই সচেষ্ট ছিলেন না । সাধারণ মানুষের সঙ্গে কথা বার্তা বলা রাজার পক্ষে অসম্মানক বলে তিনি বিবেচনা করতেন । উপযুক্ত রাজপোশাক পরিধান না করে বা উন্মুক্ত তরবারি হাতে সুসজ্জিত দেহরক্ষীর দ্বারা পরিবৃত্ত না হয়ে তিনি কখনও রাজ দরবারে প্রবেশ করতেন না । তার মতে স্বেছাচার রাজ ক্ষমতায় একমাত্র প্রজা বর্গের আনুগত্য লাভ এবং রাষ্ট্রের নিরাপত্তা বিধান করতে পারে ।

প্রজাবর্গের নীতিবিধি বা নিয়ম- সুলতানের প্রতি প্রজাবর্গের শ্রদ্ধা ও ভীতি সৃষ্টির জন্য তিনি রাজদরবারে কতকগুলি অবশ্য পালনীয় রীতি নীতি চালু করেন । যেমন- ‘সিজদা’ অর্থাৎ রাজার সম্মুক্ষে নতজানু হওয়া । পাইবম অর্থাৎ সিংহাসন চুম্বন করা প্রভৃতি । এছাড়া তিনি রাজসভায় মদ্যপান ও নৃত্যগীত নিষিদ্ধ করেন । বস্তুতপক্ষের এরুপ রীতিনীতি প্রবর্তন করে বলবন রাজকীয় মর্যাদা ও ক্ষমতা পুনরুদ্ধার করতে চেয়েছিলেন ।

আমীর ওমরাহদের কাছে নিজের প্রতিভা- আমীর ওমরাহদের কাছে রাজা ও রাজতন্ত্রের মহিমার কথা বারবার প্রকাশ করার মূলে বলবনের কতকগুলি ব্যাক্তিগত দুর্বলতা ছিল । যেমন- তিনি রাজবংশোদ্ভূত ছিলেন না । তাছাড়া প্রাথমিক জীবনে তিনি ছিলেন কৃতদাস । সিংহাসন আরোহণের আইনগত অধিকার না থাকায় বলবনকে দৈবস্বত্ব এর ওপরেই গুরুত্ব দিতে হয় ।

ন্যায় বিচার- প্রজাবর্গের প্রতি ন্যায় বিচার বল্বন রাজার মহান কর্তব্য বলে মনে করতেন । এটি ছিল তার স্বৈরাচারী শাসনের অন্যতম বৈশিষ্ট্য । রাজকর্মচারীদের কার্যকলাপের ওপর তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখার জন্য তিনি একদল ‘বারিদ’ বা গুপ্তচর নিয়োগ করতেন ।

সিংহাসন রক্ষা ও তুর্কি অভিজাতদের বদল- তুর্কি অভিজাতদের হাত থেকে সিংহাসনকে রক্ষা করতে এবং রাজতন্ত্রকে নিস্কন্ঠক করতে বলবন কতকগুলি ব্যাবস্থা গ্রহণ করেন । দিল্লীর সিংহাসন নিয়ে তার উত্তরাধিকারী ও অভিজাতদের মধ্যে প্রতিযোগিতা দূর করা প্রভৃতি । এইজন্য তিনি প্রথমেই ইল্যুতুৎমিসের পরিবার বর্গকে নিষ্ঠুর ভাবে হত্যা করেন । তিনি বন্দেগান ই চাহেলগান বা চল্লিশ চক্রের প্রভাবশালী ও ক্ষমতাশালী অভিজাতদের হত্যা করেন । এই ভাবে তিনি নরপতিত্বের আদর্শ কে তিনি সুদ্ঢ় করে সুলতানি সম্রাটের ক্ষমতাকে সর্বেসর্বা করতে চেয়েছিলেন ।

উপরিক্ত বিষয়গুলি ছাড়াও বলবন সামরিক বিভাগের সংস্কার , অভ্যন্তরীণ শাসন সংস্কার প্রভৃতি বাস্তবায়িত করে দিল্লীর সুলতানি রাজনীতিতে রাজার ক্ষমতাকে দ্ঢ়ভিত্তির উপর প্রতিষ্ঠিত করতে সমর্থ হয়েছিলেন ।

আরও পড়ুন-

ভারতে পাশ্চাত্য শিক্ষার সূচনা ও প্রসার সম্পর্কে লেখ?

চিনের ওপর আরোপিত বিভিন্ন অসম চুক্তি গুলি বিবরণ দাও?

বাংলার নবজাগরণের প্রকৃতি, বৈশিষ্ট্য ও ফলাফল আলোচনা কর

আজকের এই পোস্টে আমরা গিয়াসুদ্দিন বলবনের নরপতিত্বের আদর্শ এই প্রশ্নের উত্তরটি আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করলাম । আশা করি উত্তরটি তোমাদের ভালো লেগেছে, আমাদের ওয়েবসাইট এ মাধ্যমিক ও উচ্চমাধ্যমিক এর সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্নের উত্তর আলোচনা করা হয়, তাই আমাদের ওয়েবসাইট টি বুকমার্ক করে রাখতে পারেন ।

Leave a Comment