তিয়েনসিনের সন্ধির শর্ত গুলি এবং কবে স্বাক্ষরিত হয়

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা তিয়েনসিনের সন্ধি শর্ত গুলি কি কি এবং তিয়েনসিনের সন্ধি কবে স্বাক্ষরিত হয় তা নিয়ে আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করছি । ইতিহাসের এই প্রশ্নটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং পরীক্ষাতে প্রায়ই এই প্রশ্নটি এসে থাকে তাই প্রশ্নটি মন দিয়ে পড়ুন এবং খাতায় লিখে রাখুন । প্রশ্নের উত্তরটি যদি আপনাদের ভালো লেগে থাকে তাহলে নিজেদের বন্ধুদের সাথেও শেয়ার করুন ।

তিয়েনসিনের সন্ধির শর্ত গুলি এবং কবে স্বাক্ষরিত হয়

এর আগের পোস্টে আমরা ‘আফ্রিকা কাড়াকাড়ি’ বলতে কি বোঝ? এই প্রশ্নে উত্তরটি আলোচনা করেছিলাম ।

তিয়েনসিনের সন্ধি কবে স্বাক্ষরিত হয়?

দ্বিতীয় আফিম এর যুদ্ধে চিন হেরে যাওয়ার পর ইঙ্গ ফরাসী যৌথ বাহিনী ক্যান্টন অঞ্চল দখল করে নেয় ১৮৫৭ খ্রিস্টাব্দের ২৮ শে ডিসেম্বর । যুদ্ধে পরাজিত চিন, রাশিয়া, আমেরিকা ও ফ্রান্সের মধ্যে মোট চারটি সন্ধি স্বাক্ষরিত হয়, এই সন্ধিগুলিকে তিয়েনসিনের সন্ধি বলে । এই সন্ধির মধ্য দিয়েই আফিমের যুদ্ধের অবসান ঘটে । আফিমের যুদ্ধ মূলত আফিম বাণিজ্য কে কেন্দ্র করেই শুরু হয়েছিল ।

তিয়েনসিনের সন্ধির শর্ত

তিয়েনসিনের সন্ধির শর্তগুলি হল-

১) পাশ্চাত্য দেশগুলিতে বাণিজ্যের জন্য ১১ টি নতুন বন্দর খুলে দেওয়া হবে । এই নতুর বন্দর গুলি হল – হ্যানকাও, চিনকিয়াং, নিউচিয়াং, নানকিং প্রভৃতি ।

২) চিন ব্রিটেন কে হং কং সমর্পণ করবে এবং হং কং ব্রিটেন ইংল্যান্ড এর দখলে আসবে ।

৩) চিন ব্রিটেনকে ক্ষতিপূরণ বাবদ ২১ মিলিয়ন ডলার কোন শর্ত ছাড়ায় দেবে এবং এর মধ্যে থেকে ১২ মিলিয়ন ডলার সামরিক খরচ বাবদ, ৬ মিলিয়ন ডলার ক্ষতিপূরণ বাবদ এবং বাকি ৩ মিলিয়ন ডলার হং কং বণিকদের ঋণ পরিশোধ বাবদ দেওয়া হবে ।

৪) ইয়ংসি থেকে হ্যানকাও পর্যন্ত নদীপথ বিদেশী বণিকরা বাণিজ্যিক কাজে ব্যাবহার করতে পারবে ।

৫) ক্যান্টন, অ্যাময়, ফুচাও, নিংপো এবং সাংহাই-এই পাঁচটি বন্দর ইংরেজ বণিকদের জন্য উন্মুক্ত করা হবে এবং এই বন্দরগুলিতে ব্রিটিশ বণিকগণ এবং তাদের পরিবার বাস করতে পারবে ।

৬) পণ্যসামগ্রীর ওপর আড়াই শতাংশের অধিক অভ্যন্তরীণ শুল্ক ধার্য করা চলবে না ।

৭) ক্যাথোলিক ও প্রোটেস্টান্ট মিশনারিরা চিনে ধর্মপ্রচার এর অধিকার পাবে ।

৮) পাশ্চাত্য দেশগুলি পিকিং এ স্থানীয় দূতাবাস নির্মাণ করবে ।

৯) আমদানি এবং রপ্তানির ওপর অনতিরিক্ত পণ্যশুল্কের আরোপ চিন মেনে নেবে ।

তিয়েনসিনের সন্ধি স্বাক্ষর করার পর চুক্তি কার্যকর করার জন্য চুক্তিবদ্ধ দেশগুলি চিনের পিকিং অঞ্চলে উপস্থিত হন । চুক্তিতে স্থির হয় চিন ক্ষতিপূরণ বাবদ ব্রিটেন কে ৪ মিলিয়ন এবং ফ্রান্সকে ২ মিলিয়ন টেইল দিবেন এবং তিয়েনসিন বন্দরকে অবাধ বাণিজ্যের জন্য খুলে দেওয়া হয় ।

আরও পড়ুন-

নীল বিদ্রোহের প্রকৃতি আলোচনা কর

প্রার্থনা সমাজ টিকা? প্রার্থনা সমাজের আদর্শ, লক্ষ্য ও কার্যাবলী

গুপ্ত শাসন ব্যবস্থা সম্পর্কে আলোচনা করো

Leave a Comment