তৃতীয় বিশ্ব বলতে কী বােঝায় ?

তৃতীয় বিশ্ব বলতে কী বােঝায়

তৃতীয় বিশ্ব বলতে কী বােঝায় -আলজেরিয়ার ফ্রানৎজ ফানোন তৃতীয় বিশ্ব সম্পর্কিত ধারনার স্রষ্টা । তার মতে আমেরিকার পরিচালিত পুঁজিবাদী বিশ্ব হলো প্রথম বিশ্ব, রাশিয়া নিয়ন্ত্রিত সমাজতান্ত্রিক বিশ্ব হলো দ্বিতীয় বিশ্ব এবং দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর আফ্রিকা ও এশিয়ার যে সমস্ত দেশ স্বাধীনতা লাভ করেছে তারা তৃতীয় বিশ্বের অন্তর্গত । কারণ তারা আমেরিকা বা রাশিয়ার নেতৃত্বাধীন জোটের সঙ্গে সংযুক্ত না হয়ে নিজেদের পৃথক অস্তিত্ব নিয়ে বর্তমান ছিল । অর্থাৎ সাধারণভাবে তৃতীয় বিশ্ব বলতে বোঝায় দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর স্বাধীন হওয়া সেই সব দেশকে যারা আমেরিকা বা রাশিয়ার জোটে যুক্ত হয়নি ।

আরও পড়ুন – পঞ্চশীল নীতি বলতে কি বোঝ ?

তৃতীয় বিশ্ব অভিধা প্রথম কে ব্যাবহার করেন ?

ফ্রান্সের জনসংখ্যা সম্পর্কে আলোচনা করার সময়ে ১৯৫২ খ্রিস্টাব্দে আলফ্রেড স্যাভি ‘থার্ড ওয়ার্ল্ড’ শব্দটি ব্যাবহার করলেও পূঁজিবাদী ও কমিউনিস্ট জোটের বাইরের উন্নয়নশীল দেশগুলিকে চিহ্নিত করার জন্য ফ্রান্সের অ্যালভার ১৯৫৬ খ্রিস্টাব্দে প্রথম ‘টিয়েরস মণ্ড (Tiers monde) বা তৃতীয় বিশ্ব অভিধা ব্যাবহার করেছিলেন ।

তৃতীয় বিশ্ব সম্পর্কে মাও জে দং এর ধারনা ?

মাও জেদং অনুসারে সর্ববৃহৎ সাম্রাজ্যবাদী  রাষ্ট্রগুলি প্রথম বিশ্বের অন্তর্ভুক্ত | তার কাছে প্রথম বিশ্বে আছে আমেরিকা ও রাশিয়া যাদের  উভয়ের লক্ষ্য  বিশ্বকে নিয়ন্ত্রণ করা | দ্বিতীয়  বিশ্বে আছে দ্বিতীয় স্তরের সাম্রাজ্যবাদী রাষ্ট্রগুলি যারা প্রথম বিশ্ব  দ্বারা  নিপীড়িত হয় এবং তৃতীয় বিশ্বের উপর  নিপীড়ন চালানোর  প্রয়াস করে  | চীনসহ এশিয়া আফ্রিকা ও ল্যাটিন আমেরিকার ল্যাটিন আমেরিকার অনুন্নতও নির্যাতিত দেশগুলিই  তৃতীয় বিশ্বের অন্তর্গত |

তৃতীয় বিশ্বের রাষ্ট্রগুলির বৈশিষ্ট্য

তৃতীয় বিশ্বের রাষ্ট্রগুলির বৈশিষ্ট্য নিম্নে দেওয়া হল –

১) এই রাস্ত্রগুলি আমেরিকা ও রাশিয়ার জোটে যুক্ত ছিল না ।

২) তারা সাম্রাজ্যবাদ বিরোধী এবং

৩) এই দেশগুলি পুঁজিবাদী ও সমাজতন্ত্রবাদী অর্থনীতি গ্রহণ না করে গ্রহণ করেছিল মিশ্র অর্থনীতি ।

তৃতীয় বিশ্ব কথাটি প্রথম কে ব্যবহার করেন ?

ফরাসি জনতত্ত্ববিদ এবং ঐতিহাসিক আলফ্রেড সউভি ১৯৫২ সালে ‘অবজারভেটর’ নামক পত্রিকায় সর্বপ্রথম ‘তৃতীয় বিশ্ব’ কথাটি ব্যবহার করেন।

Leave a Comment