নিউটনের গতিসূত্র প্রথম, দ্বিতীয়, তৃতীয়

আজকে আমরা নিউটনের গতিসূত্র গুলি আলোচনা করছি । নিউটনের প্রথম সূত্র, নিউটনের দ্বিতীয় সূত্র, নিউটনের তৃতীয় সূত্র

নিউটনের গতিসূত্র

স্থিতি না গতি কোনটি বস্তুর স্বাভাবিক অবস্থা এবং কি কারনে বস্তু গতিশীল হয় । কোনো বস্তুর ওপর বল প্রয়োগ করলে বস্তুটির স্থিতি ও গতি কেমন হবে — এইসব নানা প্রশ্নের সমাধান করতে গিয়ে বিখ্যাত বিজ্ঞানী স্যার আইজ্যাক নিউটন বস্তুর গতি সম্পর্কে তিনটি মূল্যবান সূত্র আবিষ্কার করেন । এই সূত্র নিউটনের গতিসূত্র নামে পরিচিত । এই সূত্র গুলি তিনটি ভাগে বিভক্ত প্রথম, দ্বিতীয় ও তৃতীয় ।

নিউটনের প্রথম গতিসূত্র

ব্যাহিক বল প্রয়োগ না করলে স্থির বস্তু চিরকাল স্থির থাকবে এবং গতিশীল বস্তু সুষম দ্রুতিতে সরণ পথে চলতে থাকবে অর্থাৎ সচল বস্তু চিরকাল সমবেগে সরলরেখায় চলতে থাকবে । নিউটনের প্রথম গতিসূত্র থেকে বলের  সংজ্ঞা জানা যায় ।

উদাহরণ – আমরা যখন কোনো বাস বা ট্রেনের মধ্যে যায় এবং সেই বাস বা ট্রেনটি হটাৎ ব্রেক মারলে আমরাও সামনের দিকে ঝুঁকে পড়ি ।

নিউটনের দ্বিতীয় গতিসূত্র

কোন বস্তুর ভরবেগের পরিবর্তনের হার বস্তুর উপর প্রযুক্ত বলের সমানুপাতিক এবং ওই বল যে দিকে ক্রিয়া করে ভরবেগের পরিবর্তন ও সেদিকে হয় । নিউটনের দ্বিতীয় সূত্র থেকে বলের পরিমাপক সংজ্ঞা জানা যায় ।

উদাহরণ – সাইকেল চালানো

নিউটনের তৃতীয় গতিসূত্র

প্রত্যেক ক্রিয়ারই সমান ও বিপরীত প্রতিক্রিয়া আছে ।

আমরা ক্রিকেট বল কে কেচ করার সময় সেই বলের বেগে আমাদের হাথ নীচের দিকে নেমে আসে ।

স্থিতি জাড্য – স্থির বস্তু চিরকাল স্থির থাকার প্রবণতা কে স্থিতি জাড্য বলে ।
গতি জাড্য – গতিশীল বস্তুর সমগতিতে সরলরেখা বরাবর গতিশীল অবস্থা বজায় রাখার ক্ষমতা কে গতি জাড্য বলে ।

দ্বিতীয় সূত্র থেকে জানা যায় –
ভরবেগ – ভর এবং বেগের সমন্বয়ে কোনো গতিশীল বস্তুতে যে পরিমাণ গতির সৃষ্টি হয়, তাকে বস্তুটির ভরবেগ বলে ।

ভরবেগের একক কি ?

CGS পদ্ধতিতে ভরবেগের একক – গ্রাম সেমি / সেকেন্ড

SI পদ্ধতিতে ভরবেগের একক – কিলোগ্রাম মিটার / সেকেন্ড

আরও পড়ুন –

নাইট্রোজেনের যোজ্যতা কত ?

আইসোটোপ কাকে বলে , আইসোবার কাকে বলে

অণু ও পরমাণুর মধ্যে পার্থক্য লেখ

Leave a Comment