পরিপাকে খুদ্রান্তের ভূমিকা বর্ণনা কর

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা পরিপাকে খুদ্রান্তের ভূমিকা এই প্রশ্নের উত্তরটি আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করছি । পরিপাকে খুদ্রান্তের ভূমিকা এই প্রশ্নটি পরীক্ষাতে প্রায়ই এসে থাকে তাই প্রশ্নটি মন দিয়ে পড়ুন এবং কবন্ধুদের সাথেও শেয়ার করুন ।

এর আগের পোস্টে আমরা ক্লোরোপ্লাস্ট এর গঠন ও কাজ নিয়ে আলোচনা করেছিলাম ।

পরিপাকে খুদ্রান্তের ভূমিকা বর্ণনা কর

পরিপাকে খুদ্রান্তের ভূমিকা

খুদ্রান্তে কার্বোহাইড্রেট বা শর্করা, প্রোটিন ও ফ্যাট এই তিন প্রকার খাদ্যের ই পচন হয় । খাদ্যবস্তু খুদ্রান্তে আসার পর তার সঙ্গে পিত্তরস, অগ্ন্যাশয় রস ও আন্ত্রিক রস মিশে যায় । অগ্ন্যাশয় রস ও আন্ত্রিক রসে বিভিন্ন প্রকার উৎসেচক থাকে । অগ্ন্যাশয় রসে উপস্থিত উৎসেচক গুলি হল- অ্যামাইলেজ, ট্রিপসিন, লাইপেজ ইত্যাদি । আন্ত্রিক রসের উৎসেচকগুলি হল মলটেজ, সুক্রেজ, লাইপেজ, ইরেপসিন ইত্যাদি ।

অগ্ন্যাশয় রসে উপস্থিত উৎসেচকের ভূমিকা

অ্যামাইলেজ সিদ্ধ ও অসিদ্ধ শ্বেতসারকে মলটোজে পরিণত করে । ট্রিপসিন ও কাইমোট্রিপসিন পাকস্থলীতে প্রস্তুত পেপটোনের ওপর ক্রিয়া করে নিম্ন-পেপটাইড তৈরি করে । এছাড়া অগ্ন্যাশয়ী লাইপেজ ফ্যাটকে বিশ্লেষিত করে ফ্যাটি অ্যাসিড ও গ্লিসারল উৎপাদন করে ।

আন্ত্রিক রসে উপস্থিত উৎসেচকের ভূমিকা

অগ্ন্যাশয় রসের বিক্রিয়ার সাথে সাথে খাদ্যবস্তুর ওপর আন্ত্রিক রসের বিক্রিয়া শুরু হয়ে যায় । আন্ত্রিক রসে উৎপন্ন মলটেজ মলটোজকে ভেঙ্গে ২ অণু গ্লুকোজ তৈরি করে । সুক্রেজ উৎসেচক চিনি শর্করার ওপর ক্রিয়া করে গ্লুকোজ ও ফ্রূকটোজ এবং ল্যাকটোজ উৎসেচক দুগ্ধের ওপর ক্রিয়া করে গ্লুকোজ ও গ্যালাকটোজ উৎপাদন করে । এছাড়া ইরেপসিন পেপটাইডকে অ্যামাইনো অ্যাসিডে এবং আন্ত্রিক লাইপেজ ফ্যাটকে ফ্যাটি অ্যাসিডে ও গ্লিসারলে পরিণত করে । অর্থাৎ অগ্ন্যাশয়ী লাইপেজ ই সাধারণত সমগ্র ফ্যাটকে পরিপাক করে । এছাড়া ফ্যাটের কিছু অংশ পাচিত না হলে তা আন্ত্রিক লাইপেজ দ্বারা পাচিত হয় ।

পিত্তরস- পিত্তরসে কোন উৎসেচক উপস্থিত থাকে না কিন্তু পিত্তরস স্নেহজাতীয় খাদ্যকে পরিপাকে সাহায্য করে ।

যকৃত কি?

যকৃত উদর গহ্বরের ওপরের দিকে অবস্থিত । যকৃত মানুষের শরীরের সবচেয়ে বড় গ্রন্থি । যকৃত বাম খণ্ডক, ডান খণ্ডক, কোয়াড্রেট ও কডেট অংশ নিয়ে গঠিত ।

পাকগ্রন্থি কি?

পাকগ্রন্থি পাকস্থলীর অন্তরগাত্রে অবস্থিত । পাকগ্রন্থি নিঃসৃত পাচক রস আম্লিক প্রকৃতির হয় । পাকগ্রন্থির অক্সিনটিক কোশ থেকে HCL এবং পেপটিক কোশ থেকে পেপসিনোজেন নিঃসৃত হয় ।

আন্ত্রিক গ্রন্থি কি?

খুদ্রান্তের অন্তরগাত্রে অবস্থিত আন্ত্রিক গ্রন্থি । আন্ত্রিক গ্রন্থি থেকে নিঃসৃত আন্ত্রিক রস ক্ষারীয় প্রকৃতির । আন্ত্রিক গ্রন্থিতে মলটেজ, সুক্রেজ, ইরেপসিন, লাইপেজ প্রভৃতি উৎসেচক থাকে ।

আরও পড়ুন-

অগ্ন্যাশয় এর কাজ কি? | অগ্ন্যাশয় কি?

কোষচক্র কাকে বলে? | অপত্য কোষ কাকে বলে?

ট্রাকিড ও ট্রাকিয়ার মধ্যে পার্থক্য কি কি

Leave a Comment