পাট চাষের অনুকূল ভৌগলিক পরিবেশ আলোচনা কর?

হ্যালো বন্ধুরা, আজকে আমরা পাট চাষের অনুকূল ভৌগলিক পরিবেশ এই প্রশ্নের উত্তরটি আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত আলোচনা করছি । মাধ্যমিক এর এই প্রশ্নটি খুবই গুরুত্বপূর্ণ এবং পরীক্ষাতে প্রায় এসে থাকে তাই প্রশ্নটি মন দিয়ে পড়ুন এবং বন্ধুদের সাথেও শেয়ার করুন ।

এর আগের পোস্টে আমরা ভারতকে মৌসুমি জলবায়ুর দেশ বলা হয় কেন? এই প্রশ্নের উত্তরটি আলোচনা করেছিলাম ।

পাট চাষের অনুকূল ভৌগলিক পরিবেশ

পাট চাষের অনুকূল ভৌগলিক পরিবেশ

পাট চাষ ভারতবর্ষে ব্যাপক পরিমাণে হয় এবং পাট উৎপাদনে ভারতবর্ষ প্রথম স্থান অধিকার করেছে । পাট ভারতের একটি প্রধান অর্থকারী ফসল তুলোর পরে । পাট উৎপাদনের জন্য প্রয়োজনীয় ভৌগলিক অবস্থার প্রয়োজন, সেই ভৌগলিক অবস্থাগুলি নীচে বর্ণনা করা হল-

জলবায়ু- পাট চাষের জন্য উষ্ণ- আদ্র মৌসুমি জলবায়ু অঞ্চলের ফসল । তাই পাট চাষের জন্য অনুকূল পরিবেশ উষ্ণ-আদ্র হওয়া উচিত । পাট চাষের জন্য অনুকূল উষ্ণতা প্রয়োজন ২৫ ডিগ্রি সেলসিয়াস । ১৫০ থেকে ২০০ সেন্টিমিটার বৃষ্টিপাত পাট চাষের জন্য উপযুক্ত । আদ্র জলবায়ু পাট চাষের ক্ষেত্রে খুবই উপকারী হয় তাই পশ্চিমবঙ্গ, অন্ধ্রপ্রদেশ, বিহার প্রভৃতি রাজ্যে প্রচুর পরিমাণে পাট চাষ হয়ে থাকে ।

মৃত্তিকা- দোআঁশ মাটি এবং নদী উপত্যকার উর্বর পলিমাটি পাট চাষের পক্ষে উপযুক্ত । এছাড়া নদী উপত্যকার সমতলভূমি পাট চাষের পক্ষে আদর্শ ।

জলাশয়- পাট গাছ কাটার পর সেই পাট গাছগুলিকে ২৫ থেকে ৩০ দিন জলে ভিজিয়ে রাখলে তবেই সেই পাট গাছের কাণ্ড থেকে তন্তু বের করা যায় । এইজন্য পাটগাছের কাছাকাছি জলাশয় থাকা অত্যন্ত জরুরি ।

এছাড়াও-

শ্রমিকের উপস্থিত- পাট চাষের জমিতে পাট বীজ লাগানো, পাটের জমি প্রস্তুত করা, জমির পরিচর্যা করা, পাট গাছ কাটা এবং তা জলাশয়ে দেওয়া এইসব কাজের জন্য প্রচুর পরিমাণ দক্ষ শ্রমিকের প্রয়োজন হয় ।

উচ্চফলনশীল বীজ- পাঠ চাষ কে টিকিয়ে রাখতে এবং তা থেকে ভালো ফল পেতে পাট চাষের জন্য উচ্চফলনশীল বীজের প্রয়োজন হয় । এতে পাটের উৎপাদনের গুণগত মান ও উৎপাদন দুই এই বৃদ্ধি পায় ।

মূলধন- পাট চাষের জন্য উচ্চফলনশীল বীজ, সার, শ্রমিকদের বেতন প্রভৃতির জন্য প্রচুর পরিমাণ মূলধনের প্রয়োজন হয় ।

উন্নত পরিবহণ ব্যাবস্থা- পাট চাষ একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ বাণিজ্য ফসল তাই পাট কে এক জায়গা থেকে আরেক জায়গা নিয়ে যেতে উন্নত ও সুলভ পরিবহণ ব্যাবস্থা থাকা অত্যন্ত্য জরুরি ।

চাহিদা- পাট চাষ এর জন্য প্রচুর অর্থের প্রয়োজন হয় তাই পাটের চাহিদা না থাকলে পাট চাষে অনেক ক্ষতি হয় । আন্তর্জাতিক বাজারে পাটের চাহিদা অনেক কমে যাওয়ায় পাট চাষিরা অনেক সমস্যার সম্মুখীন হচ্ছে ।

ভারতে পাট উৎপাদক অঞ্চলসমূহ-

ভারতের মোট পাট উৎপাদনের ৯৮ শতাংশই পাওয়া যায় পশ্চিমবঙ্গ, বিহার, আসাম, অন্ধ্রপ্রদেশ রাজ্য থেকে । পাট উৎপাদনে ভারত পৃথিবীতে প্রথম স্থান অধিকার করেছে ।

পাট উৎপাদনে পশ্চিমবঙ্গের কোন জেলা প্রথম?

পশ্চিমবঙ্গের উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুর, মুর্শিদাবাদ, জলপাইগুড়ি, নদীয়া, কোচবিহার প্রভৃতি রাজ্যে প্রচুর পরিমাণে পাট চাষ করা হয় ।

আরও পড়ুন-

ভারতকে মৌসুমি জলবায়ুর দেশ বলা হয় কেন

ক্ষয়চক্র কাকে বলে – তৃতীয় অধ্যায় ভূগোল SAQ

আগ্নেয়গিরি কাকে বলে? আগ্নেয়গিরি কয় প্রকার ও কি কি?

Leave a Comment