প্রোক্যারিওটিক কোষ ও ইউক্যারিওটিক কোষের পার্থক্য

আজকে আমরা প্রোক্যারিওটিক কোষ ও ইউক্যারিওটিক কোষের পার্থক্য নিয়ে আলোচনা করবো । এটি একটি খুব গুরুত্বপূর্ণ প্রশ্ন এবং পরীক্ষাতে এই প্রশ্নটি বারবার ই আসে ।

প্রোক্যারিওটিক কোষ ও ইউক্যারিওটিক কোষের পার্থক্য

প্রোক্যারিওটিক কোষ কাকে বলে?

যেসব কোষে আদর্শ এবং সংগঠিত নিউক্লিয়াস থাকে না, কোষে পর্দাঘেরা কোষ অঙ্গাণু থাকে না, ক্রোমোজোম গঠিত হয় না, তাদের আদি কোষ বা প্রোক্যারিওটিক কোষ বলে। যেমন- ব্যাকটেরিয়া নীলাভ সবুজ শৈবাল ইত্যাদি প্রোক্যারিওটিক কোষের উদাহরণ।

অন্যভাবে বলা যায়, সুগঠিত নিউক্লিয়াস বিহীন এবং পর্দাবিহীন কোষ অঙ্গাণু দ্বারা গঠিত কোষকে প্রোক্যারিওটিক কোষ বলে।

Read More : ঐচ্ছিক পেশি এবং অনৈচ্ছিক পেশির মধ্যে পার্থক্য কি?

ইউক্যারিওটিক কোষ কাকে বলে?

যেসব কোষে নিউক্লিয়াসকে সংগঠিত এবং নিউক্লিয় পর্দা বেষ্টিত, ক্রোমোজোম ক্ষারীয় প্রোটিনযুক্ত , কোষে পর্দাঘেরা একাধিক কোষ অঙ্গাণু থাকে, তাদের আদর্শ কোষ ইউক্যারিওটিক কোষ বলে। উন্নত উদ্ভিদ ও প্রাণী কোষের প্রকৃত উদাহরণ।

প্রোক্যারিওটিক কোষ ও ইউক্যারিওটিক কোষের পার্থক্য

প্রোক্যারিওটিক কোষ ইউক্যারিওটিক কোষের
1. প্রোক্যারিওটিক কোষ এর আদি কোষে পর্দাঘেরা কোন কোষ অঙ্গাণু থাকে না।1. ইউক্যারিওটিক কোষের পর্দাঘেরা কোষ অঙ্গাণু থাকে।
2. রাইবোজোম 70S প্রকৃতির এবং ক্ষুদ্র2. রাইবোজোম 80S প্রকৃতির এবং বড়
3. ক্রোমোজোম সাধারণত থাকে না।3. ক্রোমোজোম সাধারণত থাকে
4. নিউক্লিয়াসটি আদি প্রকৃতির যা নিউক্লিয় পর্দা নিউক্লিওলাস এবং নিউক্লিয় জালক বিহীন। এটি কেবল DNA দিয়ে গঠিত।4. নিউক্লিয়াস টি আদর্শ প্রকৃতির যা নিউক্লিয় পর্দা নিউক্লিওলাস নিউক্লিয় রস এবং নিউক্লিয় জালক নিয়ে গঠিত।
5. কোষ বিভাজন অ্যামাইটোসিস পদ্ধতিতে ঘটে।5. কোষ বিভাজন মাইটোসিস এবং মিয়োসিস পদ্ধতিতে ঘটে।
6. কোষ প্রাচীর থাকে, যার মুখ্য উপাদান হলো মিউকোপেপটাইড বা পেপটাইডোগ্লাইক্যান।6. উদ্ভিদ কোষের কোষ প্রাচীর থাকে যার মুখ্য উপাদান সেলুলোজ, প্রাণী কোষে কোষ প্রাচীর থাকেনা
7.  শ্বসন উৎসেচক সাইটোপ্লাজম এবা প্লাজমা পর্দার অন্তগাত্রে থাকে।7. শ্বসন উৎসেচক সাইটোপ্লাজম এবং মাইটোকনড্রিয়ার মধ্যে থাকে
8. DNA প্রোটিনের সঙ্গে সংযুক্ত ভাবে থাকে না অর্থাৎ নগ্ন প্রকৃতির।8. DNA প্রোটিনের সঙ্গে সংযুক্ত ভাবে থাকে।

প্রোক্যারিওটিক কোষ এর বৈশিষ্ট্য

  • ক্রোমোজোম সাধারণত থাকে না
  • রাইবোজোম 70S প্রকৃতির এবং ক্ষুদ্র
  • কোষ বিভাজন অ্যামাইটোসিস পদ্ধতিতে ঘটে
  • DNA প্রোটিনের সঙ্গে সংযুক্ত ভাবে থাকে না অর্থাৎ নগ্ন প্রকৃতির
  • আদি কোষে পর্দাঘেরা কোন কোষ অঙ্গাণু থাকে না

ইউক্যারিওটিক কোষের বৈশিষ্ট্য

  • ক্রোমোজোম সাধারণত থাকে
  • রাইবোজোম 80S প্রকৃতির এবং বড়
  • কোষ বিভাজন মাইটোসিস এবং মিয়োসিস পদ্ধতিতে ঘটে
  • কোষের পর্দাঘেরা কোষ অঙ্গাণু থাকে
  • NA প্রোটিনের সঙ্গে সংযুক্ত ভাবে থাকে

Read More : সাইটোপ্লাজম কাকে বলে?

Leave a Comment