ভারতের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য গুলি কি কি

হ্যালো, আজকে আমরা ভারতের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য গুলি কি কি তা নিয়ে আজকের এই পোস্টে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করছি । ভূগোল এর এই প্রশ্নটি মাধ্যমিক পরীক্ষায় প্রায়ই এসে থাকে তাই প্রশ্নটি মন দিয়ে পড়ুন এবং বন্ধুদের সাথেও শেয়ার করুন ।

এর আগের পোস্টে আমরা জোয়ার ভাটা কাকে বলে, সৃষ্টির কারণ আলোচনা করো এই প্রশ্নের উত্তরটি আলোচনা করেছিলাম ।

ভারতের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য গুলি কি কি

মৌসুমি শব্দটির উৎপত্তি আরবী শব্দ ‘মৌসম’ থেকে । আমাদের দেশ ভারতবর্ষ মৌসুমি জলবায়ুর অন্তর্ভুক্ত একটি দেশ । ভারত মৌসুমি জলবায়ুর অন্তর্ভুক্ত একটি দেশ তাই বছরের বিভিন্ন সময়ে ঋতু পরিবর্তন হল মৌসুমি জলবায়ুর প্রধান বৈশিষ্ট্য ।

ভারতের জলবায়ুর বৈশিষ্ট্য গুলি কি কি

ভারতের জলবায়ুর প্রধান বৈশিষ্ট্য গুলি হল নিম্নরুপ-

১) ভারতে শীতকালীন উত্তর পূর্ব মৌসুমি বায়ু এবং গ্রীষ্মকালীন দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে ঋতু পরিবর্তন লক্ষ্য করা যায় । এই দুই বিপরীতধর্মী বায়ুর প্রভাবে ভারতে প্রধানত চারটি ঋতু লক্ষ্য করা যায় যেমন- শীত, গ্রীষ্ম, বর্ষা ও শরৎ । ডিসেম্বর থেকে ফেব্রুয়ারী মাস পর্যন্ত শীতকাল, মার্চ থেকে মে মাস পর্যন্ত গ্রীষ্মকাল, জুন থেকে সেপ্টেম্বর মাস পর্যন্ত বর্ষাকাল, অক্টোবর ও নভেম্বর মাস শরৎ কাল ভারতে সারাবছরে চক্রাকারে লক্ষ্য করা যায় ।

২) মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে ভারতে গ্রীষ্মকাল আদ্র ও শীতকাল শুষ্ক হয় । শুধুমাত্র পশ্চিমা ঝঞ্জার প্রভাবে উত্তর পশ্চিম ভারতে এবং তামিলনাড়ুর উপকূলবর্তী অঞ্চলে শীতকালে বৃষ্টিপাত হয় ।

৩) ভারতবর্ষে শীতকালে বায়ু যেদিক দিয়ে প্রবাহিত হয় গ্রীষ্মকালে তার বিপরীত দিক দিয়ে প্রবাহিত হয় ।

৪) ভারতের মোট বৃষ্টিপাতের প্রায়ই ৮০ শতাংশই গ্রীষ্মকালে এবং বাকি ২০ শতাংশ শরৎ ও শীতকালে হয়ে থাকে ।

৫) আমাদের দেশের দক্ষিণ দিক উত্তর দিকের তুলনায় অনেক বেশী চরমাভাবাপন্ন । দক্ষিণ দিকের তিন দিকই সমুদ্রবেষ্টিত থাকায় আদ্র সমুদ্রবায়ুর প্রভাবে দক্ষিণ দিকের তাপমাত্রা উত্তরের তুলনায় বেশিই থাকে ।

৬) পশ্চিমঘাট পর্বতশ্রেণীর পশ্চিম ঢালে এবং পূর্ব হিমালয়ের পাদদেশে ও উত্তর পূর্ব ভারতের পার্বত্য অঞ্চলে দক্ষিণ পশ্চিম মৌসুমি বায়ুর প্রভাবে ভারতে প্রচুর পরিমাণে শৈলৎক্ষেপ বৃষ্টিপাত হয় ।

৭) শীতকালে ভূমধ্যসাগরীয় অঞ্চলে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে উত্তর-পশ্চিম ভারতের সমতলভূমিতে প্রচুর পরিমাণে বৃষ্টিপাত হয় এর ফলে তাপমাত্রা কমে গেলে সেখানে তুষারপাত শুরু হয় ।

৮) ভারতে বৃষ্টিপাত অনিয়মিত ভাবে হয়ে থাকে । কোন বছর মৌসুমি বায়ুর আগমন তাড়াতাড়ি হলে বর্ষা তাড়াতাড়ি এসে যায় যায় এবং মৌসুমি বায়ুর আগমন দেরীতে হলে বর্ষা আসতে দেরী হয় । মৌসুমি বায়ুর এই প্রত্যাবর্তন এর ফলে অনেকসময় খরার ও বন্যার সম্ভাবনা দেখা দেয় ।

৯) শীতকালে পশ্চিমি ঝঞ্ঝা এবং বঙ্গোপসাগরে সৃষ্টি হওয়া নিম্নচাপের ফলে শীতকালেও অনেকসময় বৃষ্টিপাত ঘটে থাকে ।

১০) ভারতে জলবায়ুর অসম বণ্ঠন দেখা যায় আন্দামান নিকবোর, পশ্চিমি উপকূল এবং উত্তরবঙ্গে অনেক বেশী বৃষ্টিপাত হয় আবার রাজস্থানের মরুভূমি, কারাকোরাম, লাদাখ প্রভৃতি অঞ্চলে বৃষ্টিপাত হয় না বললেই চলে ।

আরও পড়ুন-

পৃথিবীর আবর্তন গতি কাকে বলে। আবর্তন গতির ফলাফল

আলোকবর্ষ কাকে বলে ? আলোকবর্ষের কীসের একক ?

আগ্নেয় পর্বত কাকে বলে, উৎপত্তি, প্রকারভেদ এবং বৈশিষ্ট্য

Leave a Comment