সাইটোপ্লাজম কাকে বলে? সাইটোপ্লাজমের বৈশিষ্ট্য আলোচনা কর

এই পোস্ট এ আমরা সাইটোপ্লাজম কাকে বলে? সাইটোপ্লাজমের বৈশিষ্ট্য ? সম্পর্কে বিস্তারিত ভাবে আলোচনা করবো ।

সাইটোপ্লাজম কাকে বলে? সাইটোপ্লাজমের বৈশিষ্ট্য আলোচনা কর

সাইটোপ্লাজম কাকে বলে?

কোষের প্রোটোপ্লাজমের নিউক্লিয়াসের বাইরে জেলির মতো অংশকে সাইটোপ্লাজম বলে।

সর্বপ্রথম ১৮৬২ সালে বিজ্ঞানী রুডলফ ভন কলিকার সাইটোপ্লাজম শব্দটি ব্যবহার করেন |কোষের অধিকাংশ কার্যাবলী সাইটোপ্লাজম এই সংগঠিত হয় ।

Read more : ক্রেবস চক্র কাকে বলে ?

সাইটোপ্লাজম এর বৈশিষ্ট্য

সাইটোপ্লাজমের বৈশিষ্ট্য সাইটোপ্লাজম অর্ধতরল, দানাদার, অর্ধস্বচ্ছ, সমধর্মী, কলয়ডাল তরল পদার্থ, জৈব ও অজৈব পদার্থ, পানি, বিভিন্ন এনজাইম ও অ্যাসিড নিয়ে গঠিত। সাইটোপ্লাজমীয় মাতৃকার অপেক্ষাকৃত ঘন, কম দানাদার বহিঃস্থ শক্ত অঞ্চলকে এক্টোপ্লাজম এবং কেন্দ্রস্থ অপেক্ষাকৃত কম ঘন অঞ্চলকে এন্ডোপ্লাজম বলে। সাইটোপ্লাজমের অধিকাংশয় জল এবং বর্ণহীন ।

Read More : ঐচ্ছিক পেশি এবং অনৈচ্ছিক পেশির মধ্যে পার্থক্য কি?

সাইটোপ্লাজম এর কাজ

সাইটোপ্লাজম এর বিভিন্ন কাজ গুলি নীচে দেওয়া হল –

  • সাইটোপ্লাজম কোষের গঠন বজায় রাখতে সাহায্য করে
  • বিভিন্ন শারীরবৃত্তীয় বিক্রিয়া বা বিপাক সাইটোপ্লাজমে ঘটে।
  • প্রোটোজোয়ার ( অ্যামিবা) গমনে সাহায্য করে।
  • বিভিন্ন কোষীয় অঙ্গানুর কাজে সমন্বয় সাধন ঘটায়

সাইটোপ্লাজম এর বিভাজন কে কি বলা হয় ?

সাইটোপ্লাজম এর বিভাজন কে সাইটোকাইনেসিস বলা হয় ।

সাইটোসল কি ?

সাইটোপ্লাজমের সকল অঙ্গাণু সরিয়ে নিলে যে জেলির মতো থকথকে তরল পাওয়া যায়, তাই হল সাইটোসল। অথবা সাইটোসল হল একপ্রকারের তরল পদার্থ যা কোষের মধ্যে থাকে।

Leave a Comment